1. admin@jjtv.tv : admin :
May 16, 2021, 7:25 pm

আজারবাইজান ধ্বংস করলো আর্মেনিয়ার রকেট লঞ্চার

Reporter Name
  • Update Time : Thursday, October 15, 2020
  • 70 Time View

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
আর্মেনিয়ার দুইটি রকেট লঞ্চপ্যাড ধ্বংস করেছে আজারবাইজান। বুধবার আজারবাইজানের প্রশাসন এই দাবি করেছে। আর্মেনিয়াও আজারবাইজানের এই দাবি মেনে নিয়েছে।
বুধবার আজারবাইজান জানায়, আর্মেনিয়ার একটি রকেট লঞ্চপ্যাড এবং একটি ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেম ধ্বংস করা হয়েছে। তাদের দাবি, ওই দুইটি লঞ্চপ্যাড থেকে গত কয়েক দিন ধরে আজারবাইজানের সাধারণ মানুষের ওপর গোলাবর্ষণ করা হচ্ছিলো। আর্মেনিয়া আজারবাইজানের এই দাবি মেনে নিয়েছে। তবে একইসঙ্গে আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, তার দেশের সেনা কখনোই আজারবাইজানের সাধারণ মানুষকে লক্ষ্য করে গোলাবর্ষণ করেনি। শুধুমাত্র সেনা কাঠামোগুলোকেই লক্ষ্যবস্তু করেছে তারা।

বাস্তব চিত্র অবশ্য ঠিক তেমন নয়। আজারবাইজানের একাধিক শহর আর্মেনিয়ার গোলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আজারবাইজানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর গানজাসহ একাধিক শহর থেকে সাধারণ মানুষ পালিয়ে গেছেন। অনেক সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। অন্য দিকে, আজারবাইজানও একই কাজ করেছে। তাদের গোলায় কার্যত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে নাগোর্নো-কারাবাখ।

আর্মেনিয়ার হিসেব অনুযায়ী, এই সংঘাতে সব মিলিয়ে কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে অধিকাংশই সাধারণ মানুষ। এছাড়া ঘর ছেড়েও পালিয়েছেন অসংখ্যা মানুষ।

রাশিয়া দুই দেশের কাছেই আরো একবার যুদ্ধবিরতির অনুরোধ করেছে। গত শনিবার দুইটি দেশ মস্কোর মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে সম্মত হয়েছিলো। প্রায় ১০ ঘণ্টা বৈঠকের পর দুইটি দেশই সাময়িক সময়ের জন্য যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে রাজি হয়। কিন্তু ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ফের দুই দেশই একে অপরকে আক্রমণ করতে শুরু করে। বুধবারেও গোলাবর্ষণ হয়েছে দেশ দুইটির মধ্যে।

এরইমধ্যে আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট তুরস্কের একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, আর্মেনিয়া এবার আজারবাইজানের গ্যাস এবং তেলের লাইনগুললোকে টার্গেট করছে। সেখানে বিস্ফোরণ হলে আজারবাইজান এর যোগ্য জবাব দেবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

অন্যদিকে আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, তুরস্ক ও আজারবাইজান যুদ্ধ বন্ধ করলে তারাও সেই পথেই হাঁটবেন।

বুধবার আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী প্রথমবার স্বীকার করেছেন যে, দুই দেশের মধ্যকার এই যুদ্ধে তার দেশের অনেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে সাধারণ মানুষও আছেন এবং সেনারাও আছেন। তবে এতদিন পর্যন্ত আর্মেনিয়া দাবি করছিলো, তাদের দিকে পাঁচশর বেশি মানুষের মৃত্যু হয়নি।

সূত্র- ডয়চে ভেলে

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category